‘গো বিজ্ঞান’-এর পরীক্ষায় ‘না’ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের

বিষয় ‘গো বিজ্ঞান’ । আর তা নিয়ে ইউজিসির (UGC) -র পক্ষ থেকে আলাদা পরীক্ষা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই মর্মে দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ে চিঠিও গিয়েছে। কিন্তু অন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলি এই পরীক্ষা নিতে রাজি হলেও এমন কোনও পরীক্ষা হচ্ছে না যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। এমনটাই জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তাঁরা সাফ জানিয়েছেন, ইউজিসি চিঠি পাঠিয়েছে ঠিকই, কিন্তু এমন কোনও পরীক্ষা নিতে নারাজ তাঁরা।

জনমানসে ওতপ্রোত ভাবে ‘গো বিজ্ঞান’কে জড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টায় কোনওরকম কসুর ছাড়ছে না কেন্দ্রীয় সরকার। তার জন্য বৃহস্পতিবার দেশ জুড়ে ‘গো বিজ্ঞান পরীক্ষা’ নেওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যেই তাতে নাম লিখিয়ে ফেলেছেন ৫ লক্ষ মানুষ। দেশের ৯০০টি বিশ্ববিদ্যালয়কে সেই মর্মে নির্দেশও পাঠিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। অনলাইনে গরু বিষয়ক এই সরকারি পরীক্ষায় বসার জন্য পড়ুয়াদের উৎসাহিত করতে বলা হয়েছে। কিন্তু এই ধরণের কোনও পরীক্ষা নেওয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়।
দেশি গরুর দুধে সোনার ‘হদিশ’ দিয়ে বিতর্কের সূচনা করেছিলেন রাজ্য বিজেপি-র সভাপতি দিলীপ ঘোষ। গরু নিয়ে এই পরীক্ষার আয়োজক কেন্দ্রীয় পশুপালন মন্ত্রক অধীনস্থ ‘রাষ্ট্রীয় কামধেনু আয়োগ’ কমিটি। দেশের পশুকল্যাণের জন্য ২০১৯-’২০ সালের বাজেটে ‘রাষ্ট্রীয় কামধেনু আয়োগ’-এর নাম অন্তর্ভুক্ত করে আর্থিক বরাদ্দের বন্দোবস্ত করে নরেন্দ্র মোদী সরকার। কেন্দ্রীয় মৎস্যচাষ, পশুপালন এবং দুগ্ধ উৎপাদন মন্ত্রকের অধীনস্থ সংস্থা হিসেবে কাজ করে কামধেনু আয়োগ। পশুপালন মন্ত্রকের ওয়েবসাইটেই ১ ঘণ্টার এই অনলাইন পরীক্ষার ব্যবস্থা করেছে তারা। তাদের আয়োজিত পরীক্ষার, পোশাকি নাম, ‘কামধেনু গো বিজ্ঞান প্রচার-প্রসার পরীক্ষা’। ঘোষিত লক্ষ্য, জাতীয় গো-কল্যাণ কর্মসূচিকে শক্তিশালী করা। আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারির সেই পরীক্ষার সম্ভাব্য কিছু প্রশ্ন ইতিমধ্যেই সামনে এসেছে। আর তা ঘিরেই বিতর্ক দানা বেঁধেছে নতুন করে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগীয় প্রধান রাজ্যেশ্বর সিংহ বলেন, ‘‘যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় বিজ্ঞানমনষ্ক, ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষাব্যবস্থা প্রচার করে, রাষ্ট্রের দায়িত্বও সেটাই হওয়া উচিত। সেখানে এই ধরনের একটা বিষয়কে চাপিয়ে দেওয়ার কোনও জায়গা নেই। বিশেষ করে এই সময়ে যখন করোনা পরিস্থিতি চলছে। এই বিষয়গুলো নিয়ে গবেষণা করা অনেক বেশি জরুরি ছিল বলে মনে হয়। তার বদলে এমন একটা বিষয়ের পরীক্ষার নাম করে আসলে একটা দর্শন চাপানোর চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু আপাতত যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে তেমন কিছু হচ্ছে না। সিদ্ধান্ত হয়ে গিয়েছে।’’

‘রাষ্ট্রীয় কামধেনু আয়োগ’-এর তরফে ‘মাল্টিপল চয়েস’ জাতীয় পরীক্ষা সংক্রান্ত একটি পাঠ্যসূচিও প্রকাশ করা হয়েছে সম্প্রতি। সেখানে বলা হয়েছে, ‘১৯৮৪ সালে ভোপালে গ্যাস দুর্ঘটনায় ২০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। কিন্তু যাঁদের মাটির ঘরের দেওয়ালে গোবর লেপা ছিল, তাঁদের কোনও ক্ষতি হয়নি’। ২০০৮ সালে মধ্যপ্রদেশের বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহ চৌহান, গ্যাস দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ৩,৭৮৭ বলে জানিয়েছিলেন। আর গোবরের ‘রক্ষাকবচের’ কথা সরকারি স্তরে বা গ্যাস-দুর্গত পরিবারগুলির তরফে গত সাড়ে তিন দশকে শোনা যায়নি।

শুধু তা-ই নয়, গো-হত্যার সঙ্গে ভূমিকম্পের সম্পর্ক নিয়েও অভিনব ‘বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব’ হাজির করেছে কামধেনু আয়োগ। সেখানে জুড়ে দেওয়া হয়েছে কিংবদন্তি বিজ্ঞানী অ্যালবার্ট আইনস্টাইনের নাম। তাদের ব্যাখ্যা, কোনও এক জায়গায় দীর্ঘদিন ধরে গবাদি পশু জবাই করা হলে তাদের মরণ-আর্তনাদের ‘প্রভাব’ পড়ে ভূস্তরের উপর। ‘আইনস্টাইনিয়ান পেন ওয়েভ’-এর দীর্ঘস্থায়ী ফল হিসেবেই ভূমিকম্প হয় বলে জানানো হয়েছে পাঠ্যসূচিতে।