ম্যাচ ড্র, চ্যাম্পিয়নস লিগের ভাগ্য ঝুলে থাকল হাবাসের দলের

হায়দরাবাদ এফসি- ২

এটিকে মোহনবাগান- ২

সোমবার হায়দরাবাদ এফসিকে হারাতে পারলেই ভারতীয় ক্লাব দল হিসেবে অনন্য নজির গড়তে পারত সবুজ-মেরুন। প্রথম ভারতীয় দল হিসেবে সরাসরি এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলার সুযোগ পেত  হাবাসের ছেলেরা। কিন্তু স্বপ্ন পূরণ হল না।
১০ জনের হায়দরাবাদ এফসিকে কব্জায় পেয়েও হারাতে পারল না ১১ জনের এটিকে মোহনবাগান। শেষ মুহুর্তের গোলে কোনওমতে ড্র করে মাঠ ছাড়ল সবুজ-মেরুন শিবির। ২-২ ফলাফলে শেষ হয়েছে ম্যাচ।
অবশ্য এখনও আশা আছে স্বপ্নপূরণের ।এই ম্যাচ ড্র হওয়ায় ১৯ ম্যাচে ৪০ পয়েন্টে নিয়ে লিগ তালিকার শীর্ষেই থেকে গেল মোহনবাগান। ১৮ ম্যাচে ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে আছে মুম্বই সিটি এফসি। শেষ দুই ম্যাচে তারা জিতলে পৌঁছাবে ৪০ পয়েন্টে। এর মধ্যে আবার একটি ম্যাচ হাবাসের দলের বিরুদ্ধেই। সেই ম্যাচ থেকে ১ পয়েন্ট পেলেই প্রথম ভারতীয় দল হিসেবে সরাসরি এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলার সুযোগ পাবে এটিকে মোহনবাগান।
১০ জনের হায়দরাবাদ এফসি নিরন্তর লড়াই চালিয়ে যায়। এটিকে মোহনবাগানের গোলমুখে একের পর এক আক্রমণ তুলে আনতে থাকে নিজামের শহর। তারই প্রভাবে ম্যাচের ৮ মিনিটে গোল করে হায়দরাবাদকে এগিয়ে দেন আরিদানে সান্টানা। টুর্নামেন্টে এটি তাঁর দশম গোল। ১০ জনের হায়দরবাদের কাছে এক গোলে পিছিয়ে পড়ে আক্রমণে গতি বাড়ায় এটিকে মোহনবাগান। বেশ কয়েকবার গোলের কাছে পৌঁছেও ব্যর্থ হন রয় কৃষ্ণ, ডেভিড উইলিয়ামসরা। ফলে ১ গোলে পিছিয়ে থেকেই প্রথমার্ধ শেষ করে এটিকে মোহনবাগান।
তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সমতা ফেরায় সবুজ মেরুন। ৫৭ মিনিটে একক দক্ষতায় দুরন্ত গোল করেন পাঞ্জাব তনয় মনবীর। তবে পাঁজরে চোট পেয়ে ৭৫ মিনিটে তারকা ডিফেন্ডার সন্দেশ মাঠ ছাড়তেই ফের গোল হজম করে এটিকে মোহনবাগান। লিস্টনের বদলে ‘সুপার সাব’ হিসেবে মাঠে নামা রোলান্ড গোল করে ব্যবধান বাড়িয়ে দেন।
ম্যাচের একদম শেষ মুহুর্তে ১০ জনের হায়দরাবাদের বিরুদ্ধেও গোল শোধ দেন এটিকে মোহনবাগানের প্রীতম কোটাল।