কোন দিকে অবস্থান? অর্জুনের নিশানায় শুভ্রাংশু

তাঁর রাজনৈতিক পাপের জন্য হয়তো তাঁর মাকে এতো ভুগতে হচ্ছে- মুকুল-জায়া কৃষ্ণা রায়ের (Krisna Ray) অসুস্থতা প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমে এমনই মন্তব্য করেছিলেন পুত্র শুভ্রাংশু রায় (Shubranshu Ray)। বিজেপি (Bjp) নেতার এই বক্তব্যকেই “অর্থহীন এবং অবৈজ্ঞানিক” বলে মন্তব্য করলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং (Arjun Singh)। তাঁর দাবি, অবৈজ্ঞানিক কথা বলছেন শুভ্রাংশু। রাজ্য রাজনীতিতে অর্জুন ও মুকুল শিবিরের দূরত্ব অজানা নয়। এমনকী, বিধানসভা নির্বাচনে বীজপুরে শুভ্রাংশুর হারের পিছনে অর্জুনের হাত রয়েছে বলেও মনে করেন অনেকে।

বিজেপি-র সর্বভারতীয় সহ সভাপতি মুকুলের স্ত্রী কৃষ্ণা রায় বেশ কিছু দিন ধরেই হাসপাতালে রয়েছেন। করোনা থেকে সেরে উঠলেও অন্যান্য সমস্যায় ভেন্টিলেশনে রয়েছেন। গত বুধবার কাকে দেখতে যান তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee)। তার কিছুক্ষণ পরেই রাজ্য বিজেপি-র সভাপতি দিলীপ ঘোষের (Dilip Ghosh) হাসপাতালে যান। পরের দিন বৃহস্পতিবার সকালে মুকুল রায়কে (Mukul Ray) ফোন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi)। সব মিলিয়ে বিষয়টি সঙ্গে রাজনীতি মিশে যায়। এতদিন কোন খোঁজ না নেওয়ায় বিজেপির বিরুদ্ধে অনুকরণের অভিযোগ ওঠে।

তাঁর মায়ের অসুস্থতায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের দেখতে যাওয়ার ঘটনায় আপ্লুত শুভ্রাংশু সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘‘হয়ত, আমি যে পাপ করেছিলাম তার ফলেই মাকে এত ভুগতে হচ্ছে। আমরা ভোটের প্রচারে ভেদাভেদের রাজনীতি করেছিলাম। আর সেই সময়ে যাঁদের বিরুদ্ধে কথা বলেছি, তাঁদের অনেকে এখন মায়ের সুস্থতা কামনা করে চাদর চড়াচ্ছেন।’’ এই প্রসঙ্গেই শুভ্রাংশুকে আক্রমণ করেন ব্যারাকপুরের সাংসদ। বলেন, এই পাপ ও প্রায়শ্চিত্বের কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। অর্থহীন কথাবার্তা।

তবে কি তিনি তৃণমূলে ফিরছেন? গত কয়েক দিন ধরে এই প্রশ্নের উত্তরে শুভ্রাংশু বললেন, ‘‘আমার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল মাকে সুস্থ করে বাড়িতে নিয়ে আসা।’’ একদিকে প্রধানমন্ত্রীর ফোনকে গুরুত্ব দেওয়ার থেকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাসপাতালে দেখতে যাওয়ার ঘটনাকে বড় করে দেখা, তৃণমূল সাংসদের প্রশংসা করা, আরেক দিকে অর্জুনের তির- সব মিলিয়ে শুভ্রাংশুর অবস্থান নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে।

আরও পড়ুন- শীতলকুচিকাণ্ডে সিআইডির চাঞ্চল্যকর তথ্য, ভোটের দিন বুথ তাক করেই চলেছিল গুলি

Advt