জ্বালানি তেলে ৬৮% শুল্ক কেন্দ্র নেয়, আর দোষ রাজ্যের: মমতার সুরে সরব রাহুল

জ্বালানি তেলে রাজ্য সরকার তাদের শুল্ক কমাক কোভিড বৈঠকে বাংলা সহ একাধিক অবিজেপি রাজ্যের(Non BJP State) নাম ধরে এমনটাই দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি(Narendra Modi)। শুধু তাই নয়, মানুষের সঙ্গে এই রাজ্যগুলি অন্যায় করেছে বলেও তোপ দাগেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর সেই বক্তব্যের পাল্টা দিয়ে বুধবার সরব হয়েছিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee)। এবার তোপ দাগলেন কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী(Rahul Gandhi)। কড়া সুরে তিনি জানালেন, জ্বালানী তেলের মূল্যবৃদ্ধির দায় কেন্দ্র রাজ্যের উপর ঠেলছে। অথচ এই কেন্দ্র তেলের দামে ৬৮ শতাংশ কর নেয় সাধারণ মানুষের থেকে।

এদিন টুইট করে মোদি সরকারকে তোপ দেগে রাহুল গান্ধী লেখেন, “দেশে কয়লার ঘাটতি দোষ রাজ্যের, কোভিডকালে অক্সিজেনের ঘাটতি দোষ রাজ্যের, সমস্ত রকম জ্বালানিতে কেন্দ্রীয় সরকার ৬৮ শতাংশ কর নেয়, তারপরও প্রধানমন্ত্রী সমস্ত দায় রাজ্যের ঘাড়ে ঝেড়ে ফেলছেন। মোদির এই সঙ্ঘবাদ একেবারেই সহযোগী নয়।”

আরও পড়ুন:অদ্ভুত যুক্তিতে পৃথক উত্তরবঙ্গ রাজ্যের দাবি শিলিগুড়ির বিজেপি বিধায়কের, পাল্টা দিল তৃণমূল

শুধু তাই নয়, মোদির মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করে বুধবারই তোপ দাগেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নবান্ন থেকে সাংবাদিক বৈঠক করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “কেন্দ্র টাকা কোথা থেকে পায়? ৭৫ শতাংশ টাকা নিয়ে চলে যায়। কেন্দ্রের কাছে ৯৭ হাজার কোটি টাকা পাই। কিন্তু বকেয়া টাকা দিচ্ছে না। সেই টাকা থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকা দিক ওই ক্ষেত্রে ১০ হাজার কোটি টাকা দেব আমরা। ২০১৪ সাল থেকে পেট্রোপণ্যে মোদি সরকার ১৭ লক্ষ ৩২ হাজার কোটি টাকার বেশি আয় করেছে। এর মধ্যে রাজ্যকে কত টাকা দিয়েছে?” পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “এদিনের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য আমাদের শুনতে হয়েছে। তবে তাঁর সঙ্গে কথা বলার আমাদের কোনও সুযোগ ছিল না। একতরফা বক্তব্য প্রধানমন্ত্রীর। মুখ্যমন্ত্রীদের বলতে দেওয়া হয়নি।” পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, কোভিডের মিটিংয়ে এই সমস্ত বলা উচিত হয়নি। এটা ওঁর অ্যাজেন্ডা ছিল। একইসঙ্গে বিজেপি শাসিত রাজ্যকে কেন্দ্র যে টাকা দেয় অবিজেপি রাজ্যগুলিকে সে টাকা দেওয়া হয়না বলেও এদিন অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী।




Previous articleবলিউডের স্টারকিডসদের ন্যানিদের পারিশ্রমিক শুনে চোখ কপালে নেটিজেনদের