সীমান্তরক্ষীদের সমস্যা সমাধানে ইতিবাচক পদক্ষেপ নিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী, বিএসএফের অনুষ্ঠানে দাবি শাহের

একুশের বিধানসভা ভোটে সর্বশক্তি প্রয়োগ করেও মুখ থুবড়ে পড়েছিল অমিত শাহের দল বিজেপি। অন্যদিকে বিধানসভা ভোটে নিজেদের সর্বকালীন রেকর্ড গড়ে তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় এসেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূল। এরপর মাঝে কেটে গিয়েছে একটি বছর। আজ যখন তৃতীয় তৃণমূল সরকারের প্রথম বর্ষপূর্তি, ঠিক সেইদিনেই একুশের বিধানসভা ভোটের পর প্রথমবারের জন্য রাজ্যে পা রাখলেন অমিত শাহ। দক্ষিণবঙ্গ ও উত্তরবঙ্গ মিলিয়ে তাঁর দু’দিনের ঠাসা কর্মসূচিতে থাকছে সরকারি অনুষ্ঠান থেকে দলীয় জনসভা।

আজ, বৃহস্পতিবার সকালে দিল্লি থেকে কলকাতা বিমানবন্দরে নেমে সেখান থেকে সোজা উত্তর ২৪ পরগনার

হিঙ্গলগঞ্জ পৌঁছে বিএসএফের ৮৫ নম্বর ব্যাটেলিয়ানের ৬টি অত্যাধুনিক ভাসমান আউটপোস্ট-এর উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। একইসঙ্গে সুন্দরবনের দুর্গম এলকায় চিকিৎসা পরিষেবার জন্য একটি বোট অ্যাম্বুলেন্স-এরও উদ্বোধন করেন তিনি

এরপর দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ বঙ্গ সফরের প্রথমদিনের দ্বিতীয় কর্মসূচিতে যোগ দেন বনগাঁর হরিদাসপুরে। সেটিও বিএসএফ-এর অনুষ্ঠান। সেখানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সেনা সদস্য বিশেষ করে সীমান্তরক্ষী বাহিনীর প্রশংসা করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে অমিত শাহ দাবি করেন, বর্তমান ভারত সরকার মানবাধিকারের বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করে। দেশের বিভিন্ন সীমান্ত ভারতের নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় মানুষদের মানবাধিকার রক্ষা করে চলেছে। মুক্তিযুদ্ধের সময়েও ভারতীয় সেনা সদস্যরা বাংলাদেশকে মুক্ত করে সে দেশের নাগরিকরদের মানবাধিকার রক্ষা করেছে বলেও মন্তব্য করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এরপর সীমান্তরক্ষী জওয়ানদের উদ্দেশ্য করে অমিত শাহ বলেন, “দেশের যে সকল সীমান্তরক্ষীরা সীমান্তবর্তী এলাকা পাহারার দায়িত্বে রয়েছেন তাঁদের কাজ কতটা কঠিন। আমরা জানি, দেশকে রক্ষা করতে আপনাদের সর্বদা সতর্ক থাকতে হয়।’’

এরপরই অমিত শাহ জানান, সীমান্ত সামলানোর দায়িত্বে থাকা সেনা সদস্যেরা যাতে কোনওরকম সমস্যার সম্মুখীন না হন, তা নিশ্চিত করেতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সদা সচেষ্ট। সীমান্তরক্ষীদের সমস্ত সমস্যার কথা প্রধানমন্ত্রীর গোচরে আছে বলেও জানান। এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাবি করেন, প্রধানমন্ত্রী সীমান্তরক্ষীদের সমস্যা সমাধানে ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন।

এদিন হিরিদাসপুরে বিএসএফ কর্তাদের সঙ্গে সীমান্ত সমস্যা নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ বৈঠকও করেন। তাঁদের সঙ্গে মধ্যহ্নভোজ সারেন বলে জানা গিয়েছে। এরই পাশাপাশি এদিন ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী সংগ্রহালয়ের শিলান্যাসও করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

এরপর মতুয়া সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি দলীয় সাংসদ ও বিধায়কদের সঙ্গেও বৈঠক করার কথা আছে তাঁর। সন্ধেয় উত্তরবঙ্গের শিলিগুড়িতে রেলওয়ে ইনস্টিটিউট স্পোর্টস গ্রাউন্ডে জনসভা দিয়ে বৃহস্পতিবার প্রথমদিনের বঙ্গ সফরের কর্মসূচি শেষ করবেন অমিত শাহ।

 

 

Previous articleRCB: জয়ে ফিরলেও ব‍্যাটিং নিয়ে দুশ্চিন্তা যাচ্ছে না আরসিবি অধিনায়ক ফ‍্যাফ ডুপ্লেসির