কেন্দ্রকে ২১ জুলাই আক্রমণ করায় প্রতিহিংসার রাজনীতি বিজেপির : ফিরহাদ হাকিম

তৃণমূলের শহিদ স্মরণ সমাবেশের ২৪ ঘণ্টাও পেরোয়নি।শুক্রবার সকালে এসএসসি মামলায় দুর্নীতির অভিযোগে প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী সহ মোট ১৩ জনের বাড়িতে ইডি হানা দিয়েছে। আর এর নেপথ্যে বিজেপির ‘প্রতিহিংসার রাজনীতি’ দেখছে তৃণমূল।শাসকদলের অভিযোগ, ২১ জুলাইয়ের মঞ্চে সিবিআই-ইডি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তৃণমূল নেতৃত্বের আক্রমণ শানানোর পরেই রাতারাতি এই হানা দিয়েছে ইডি। এই প্রসঙ্গে কলকাতার মেয়র তথা মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেছেন, ‘‘হাই কোর্ট অকারণে হেনস্থা করতে বলেনি। কেন্দ্রীয় সরকার ক্ষমতার অপব্যবহার করছে। হাই কোর্ট সিবিআইয়ের কথা বলেছে। এখন ইচ্ছা করে আর্থিক তছরুপের মামলা ঢোকানো হচ্ছে। বেইজ্জত করতে এ সব করা হচ্ছে।’’

আরও পড়ুন- প্রয়াত সাংবাদিক ও সঙ্গীতশিল্পী শর্মিষ্ঠা রায়, শোকের ছায়া শিল্পীমহলে
ফিরহাদের সাফ কথা, ‘‘ইডির তৎপরতা আগে কখনও দেখিনি। রাজনৈতিক নেতাদের হেনস্থা করা বিজেপির হাতিয়ার। বাংলায় বিজেপির কিছু নেই। বাংলার বিজেপির শক্তি ইডি। গত কাল আমরা কেন্দ্রকে আক্রমণ করেছি। লড়াই শুরু হয়েছে। তাই প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে।’’উল্লেখ্য, ইডি-সিবিআইকে দিয়ে ‘কেন্দ্রীয় সরকারের ভয় দেখানোর রাজনীতি’ নিয়ে অতীতেও সরব হয়েছেন মমতা সহ তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব। ২১ জুলাইয়ের মঞ্চে আবারও কেন্দ্রের ইডি-সিবিআইয়ের ‘অপব্যবহার’ নিয়ে মমতা কটাক্ষের সুরে বলেছিলেন, ‘‘সিবিআই এলে বলবেন, আসুন আসুন বসুন। আসন পেতে দেবেন। সামনে গ্যাসের সিলিন্ডার রেখে দেবেন। সিবিআই-ইডি বাড়িতে এলে থালায় করে মুড়ি খেতে দেবেন।’’
শুক্রবার সকালে মেখলিগঞ্জে পরেশ অধিকারীর বাড়িতে হানা দিয়েছেন ইডির আধিকারিকরা। এই প্রসঙ্গে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘‘কলকাতায় আছি। বাড়িতে ফোন করেছিলাম। কিন্তু সব ফোন নিয়ে নিয়েছে। বাড়ির সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছি না। তাই বুঝতে পারছি না কী হচ্ছে। বাড়িতে থাকলে দিদির নির্দেশে মুড়ি খাওয়াতাম।’’

 

 

Previous articleCorona update: কমছে না সংক্রমণ, ফের বাড়ল দৈনিক মৃত্যু