অপহরণের দুদিন পর শিশুর দেহ উদ্ধার, রণক্ষেত্র শান্তিনিকেতন

অভিযুক্তের বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ায় উত্তেজনার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই সেই আগুন নেভানোর কাজ শুরু হয়েছে। পুলিশ সেখানে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছে।

পাড়ার দোকানে বিস্কুট কিনতে গিয়ে নিখোঁজ (Missing)হয়ে যায় ৫ বছরের শিশু। বীরভূম জেলার (Birbhum) শান্তিনিকেতনের (Shantiniketan)ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছিল। দুদিন পর প্রতিবেশীর বাড়ির ছাদে মিলল এক রত্তির দেহ। এরপরই উত্তেজিত জনতা অভিযুক্ত প্রতিবেশীর বাড়িতে ভাঙচুর করার পর আগুন লাগিয়ে দেয়। রীতিমত অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে । সামান্য বিবাদের জেরে হত্যা?

শান্তিনিকেতনের মোলডাঙা এলাকায় একটি অঙ্গনওয়ারি কেন্দ্রের ছাত্র শিবম ঠাকুর (Shivam Thakur)। দিন দুয়েক আগে সকাল ১০টা নাগাদ বাড়ি থেকে ঢিল ছোড়া দূরত্বে গ্রামের এক মুদিখানার দোকানে সে বিস্কুট কিনতে যায়। তারপর থেকেই তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। দীর্ঘক্ষণ খোঁজাখুঁজির পর খবর দেওয়া হয় শান্তিনিকেতন থানায় (Shantiniketan Police Station)। উত্তেজনা ছড়ায় গ্রামে ৷ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় শান্তিনিকেতন থানার পুলিশ। পরিবারের সূত্রে খবর, শিবমের খোঁজে তল্লাশি শুরু হয়। শান্তিনিকেতন থানার ওসি পার্থ কুমার ঘোষের (partha kumar ghosh)নেতৃত্বে পুলিশ তল্লাশি অভিযান চালায় পুলিশ। গ্রামজুড়ে ও আশেপাশের অঞ্চলেও তল্লাশি এবং জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ ৷ এমনকি, কুকুর এনেও তল্লাশি চালান হয়। এরপর আজ মঙ্গলবার সকালে প্রতিবেশীর বাড়ির ছাদ থেকে দেহ উদ্ধার হয়। ক্ষোভে ফুঁসছেন গ্রামবাসীরা। আজ অভিযুক্ত প্রতিবেশীর পাশের বাড়ির লোকেরা ছাদে উঠলে দুর্গন্ধ পায় এবং সেখান থেকেই তাঁদের সন্দেহ হয়। এরপরই দেহ উদ্ধার হয় সেই প্রতিবেশীর বাড়ির ছাদ থেকে। অভিযুক্তের বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ায় উত্তেজনার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই সেই আগুন নেভানোর কাজ শুরু হয়েছে। পুলিশ সেখানে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছে।

Previous articleডলার নয়, বাংলাদেশের সঙ্গে টাকায় বাণিজ্য করতে সম্মত SBI