রাজীব স্যরের Distance Education

এমন সুযোগ স্বপ্নেও মেলেনা। এ যেন দক্ষিণ আফ্রিকার বোলারদের বিরাট কোহলি নিজেই শেখাচ্ছেন,তাঁকে কীভাবে আউট করতে হবে।

রাজ্যের, হয়তো বা গোটা দেশের অপরাধীদের কাছেই এটা সত্যিই এক ‘সুবর্ণ-সুযোগ’। এই ট্রেন মিস করলে ক্রিমিন্যাল হিসাবে সমাজে নাম করতে পারা মুশকিল। যে সুযোগ উনি এনে দিয়েছেন, তা নিঃসন্দেহে এই পরিস্থিতিতে উপযোগী এবং কোর্সের স্ট্রাকচারও প্রশংসার দাবি রাখে। পুরোটাই প্র্যাকটিক্যাল ডেমনস্ট্রেশনের মাধ্যমে করে দেখানো হচ্ছে। অসম্ভব আধুনিক এই কোর্স নিয়ে বাংলায় এবার নতুন রূপে হাজির হয়েছেন তিনি। এতদিন অন্য পরিচয়ে ওনাকে চিনতেন। এখন চিনুন একজন আন্তরিক ও নিষ্ঠাবান গুরু হিসাবে, যিনি ‘মডেল’ ছাত্র তৈরি করতে আপাতত এই বাংলায় বেনজির এক ‘Distance Education’
কোর্স নিয়ে এসেছেন। সফল হলে গোটা দেশে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। ওনার বিশ্বাস,এই কোর্স কুখ্যাত অপরাধীদের কাছে আশীর্ব্বাদ হয়ে দাঁড়াতে পারে। ঠিকঠাক ফলো করতে পারলে, আর পিছনে ফিরে তাকাতে হবে না।

নজিরবিহীন এই শিক্ষাক্রম নিয়ে এসেছেন আমাদের খুব চেনা সেই রাজীব স্যর। রাজীব স্যরের কাছ শেখা যাবে, পুলিশ বা তদন্তকারী কোনও এজেন্সি খুঁজতে নামলে কীভাবে তা “মর্যাদার সঙ্গে” এড়িয়ে যেতে হয়, গোপন ডেরায় বসেই কীভাবে সাম্রাজ্য চালানো যায়, ফেরার থাকলেও দৈনন্দিন জীবনে স্বাভাবিক কাজকর্ম চালানো যায় ইত্যাদি। এই সিলেবাস নিয়েই হাজির হয়েছেন আমাদের রাজীব স্যর।

রাজীব স্যর একটা বিশেষ সুবিধাও দিয়েছেন। এসব শিখতে কোথাও যেতে হচ্ছেনা। পুরোটাই Distance Education, একটু চোখ-কান খোলা রাখতে হবে শুধু। হাতে সময় নিয়ে বাড়িতে বসেই এবার শেখা যাচ্ছে এসব টেকনিক। এক্কেবারে বিনে পয়সায় হাতে কলমে এসব শেখাচ্ছেন রাজীব স্যর। কষ্ট করে শুধু রাজীব স্যরের কোর্স ফলো করে যেতে হবে। আর এই ‘দূর শিক্ষার ক্লাশ’ যদি ঠিকঠাক ফলো করতে পারেন, তাহলে যত দুঁদে অপরাধীই আপনি হোন না কেন, পুলিশ আপনার নাগালই পাবেনা। 100% সাকসেসের গ্যারান্টিও দিচ্ছেন উনি। এমন দৈব-সুযোগ মিস করা আর বাকি জীবনটা ভেতরে থাকা, একই ব্যাপার। আগামীদিনে ‘কুখ্যাত দুষ্কৃতী’ হতে চান যারা, তাঁদের এই নজিরবিহীন সুযোগ হাতছাড়া করা মূর্খামি হবে।

রাজীব স্যর খুব ব্যস্ত মানুষ। ওদিকে একটা দার্শনিক, দার্শনিক ভাবও আছে ওনার মধ্যে। সব সময় সরকারের হুকুম তামিল করতে করতেই যে জীবন কেটে যায়, সেটা আবার কোনও জীবন নাকি! তাই তো তিনি এগিয়ে এসেছেন, সমাজকে কিছু একটা দিয়ে যেতে। একটা ছাপ রেখে যেতে। কত কিছু তিনি জানেন, তারই একটা অংশ এবার বিলিয়ে দিচ্ছেন মানুষের মধ্যে। যে বা যারা এই “রাজীব স্যরের এই টিউটোরিয়াল”-এ আগ্রহ দেখাচ্ছে না, এখনই বলা যায়, তাঁরা অসম্পূর্ণ-সমাজবিরোধী, এই ফিল্ডে বড় হতে পারবে না, নামও হবেনা। পুলিশ বা তদন্তকারীদের বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে কী ভাবে ‘বাইরে’ থাকতে হয়, এবার এইটুকুই শেখাচ্ছেন রাজীব স্যর। পরে সুযোগ-সুবিধা থাকলে অন্য কোর্স নিয়ে সামনে আসবেন। সে পরেরটা পরে দেখা যাবে। এবারের ক্লাসগুলো মিস করা কতখানি বুদ্ধিদীপ্ত হচ্ছে, একবার ভেবে দেখবেন। কুখ্যাত-সমাজবিরোধী, প্রতি মুহূর্তে যাকে পুলিশ দৌড় করাচ্ছে, যাকে পালিয়ে কোনও গোপন ডেরায় কারো শেলটারে থাকতে হচ্ছে, পুলিশ বা তদন্তকারীরা কিছুতেই তাঁকে খুঁজে পাবেনা। ফেরার থাকা অবস্থাতেই একের পর এক আদালতে সই করা হলফনামা জমা পড়ছে, কিন্তু কিছুতেই তাঁকে “খুঁজে” পাওয়া যাচ্ছে না। এই লেভেলে পারফর্ম করতে পারলে, গোটা রাজ্য বা দেশ আপনাকে কুর্ণিশ জানাবে ডাকসাইটে এক দুষ্কৃতী হিসেবে। সত্যি করে বলুন, আপনি চান না সেটা? একটু খামতি আছে হয়তো, সে সব পুষিয়ে দিতেই তো রাজীব স্যর আছেন। বুঝতে পারছি, আপনি এততো কিছু জানার পর আগ্রহী হয়েছেন এই কোর্সে। ঠিকই তো, উন্নতি করতে কে না চায়।

তাই আর সময় নষ্ট করবেন না, এই মুহূর্ত থেকেই ফলো করুন “রাজীব স্যরের Distance Education” কোর্স।

আরও পড়ুন-পানিহাটি পুরসভায় হামলা, তুলকালাম কাণ্ড